পল্লী উন্নয়ন একাডেমি বগুড়া

পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (আরডিএ) বগুড়া

পল্লী উন্নয়ন একাডেমি (Rural Development Academy) বা RDA বগুড়া জেলার শেরপুর উপজেলায় অবস্থিত একটি প্রশিক্ষণ, গবেষণা কর্মের একটি বিশেষায়িত পল্লি উন্নয়ন সংস্থা। এটি ১৯৭৪ সালের ১৯শে জুন  প্রতিষ্ঠিত হয়। আরডিএ ৪৮.৫০ হেক্টর জায়গার মধ্যে মূল অফিস স্টাফ কোয়াটার, স্কুল ও কলেজ, শিশু পার্ক, ও খেলার মাঠ ইত্যাদি রয়েছে। 

পল্লী উন্নয়ন একাডেমির অবস্থান 

বাঙালি জাতির অবিসংবাদিত নেতা, বাংলাদেশের স্বাধীনতার স্থপতি, শেখ মুজিবুর রহমান। তার গৃহীত মৌলিক পদক্ষেপের মধ্যে দেশের দরিদ্র উত্তরাঞ্চলে গ্রামীণ উন্নয়নভিত্তিক প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা উল্লেখযোগ্য। গ্রামীণ-কেন্দ্রিক বাংলাদেশের উন্নয়নে প্রশিক্ষণ ও গবেষণার অপরিহার্য।

তার একক প্রচেষ্টায়, তিনি 1974 সালে বাংলাদেশের উদ্বোধনী পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনার পরিধির মধ্যে 22 মিলিয়ন টাকা বরাদ্দ করেছিলেন। আরডিএ বগুড়া শহর থেকে 16 কিলোমিটার দক্ষিণে অবস্থিত। 120 একর জমির উপরে, একাডেমির বর্তমান স্ব-মালিকানাধীন প্রাঙ্গনে দাঁড়িয়ে আছে।

এই একাডেমির প্রাথমিক কাজগুলি প্রশিক্ষণ প্রদান, গবেষণা পরিচালনা এবং ফলিত গবেষণা প্রচেষ্টায় জড়িত থাকার চারপাশে আবর্তিত হয়।

পল্লী উন্নয়ন একাডেমির ইতিহাস 

শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে বাংলাদেশের উন্নয়নের জন্য প্রথম পঞ্চবার্ষিক পরিকল্পনা করা হয়েছিল। এবং তিনি দেশের দারিদ্র্য ও ক্ষুধা মুক্তি নিয়ে কাজ করেন। একাডেমিতে গ্রামীণ অঞ্চলে প্রশিক্ষণ ও গবেষণা কেন্দ্র প্রতিষ্ঠা তার একটি গুরুত্বপূর্ণ পদক্ষেপ।

এই প্রতিষ্ঠান দেশের দারিদ্র্যমুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ হিসেবে মহৎ ভূমিকা পালন করে। এই প্রতিষ্ঠানের মূল উদ্দেশ্য ছিল গ্রামীণ অঞ্চলে প্রশিক্ষণ, গবেষণা, ও পরামর্শ প্রদান।

আরডিএ প্রদর্শনী খামার

ফলিত গবেষণার মাধ্যমে, বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমি প্রযুক্তিগত উদ্ভাবন এবং উন্নত কৃষি প্রযুক্তি প্রদর্শনের জন্য তার ক্যাম্পাসের মধ্যে 80 একর জুড়ে একটি প্রদর্শনী খামার প্রতিষ্ঠা করেছে। এই উদ্যোগটি বাংলাদেশের কৃষি ও গ্রামীণ উন্নয়নের সকল দিকগুলির সাথে সামঞ্জস্যপূর্ণ।

ভারতের হায়দ্রাবাদে ন্যাশনাল ইনস্টিটিউট অফ রুরাল ডেভেলপমেন্ট (এনআইআরডি) এর মতো একটি প্রযুক্তি পার্কে রূপান্তরিত করার লক্ষ্যে, এই প্রকল্পটি প্রদর্শনী খামারের কার্যক্রমকে সুসংহতভাবে সাজানোর জন্য বিভিন্ন ইউনিটকে একীভূত করে। 

১.ফসল ইউনিট
২.নার্সারী ইউনিট
৩.পোল্ট্রী ইউনিট
৪.ডেইরী ইউনিট
৫.মৎস্য ইউনিট
৬.টিস্যু কালচার এন্ড বায়োটেকনলজি ইউনিট
৭.সেচ ও কৃষি যন্ত্রপাতি ইউনিট
৮.কৃষিপণ্য প্রক্রিয়াজাতকরণ, সংরক্ষণ ও বিপণন (এপিএম) ইউনিট।
৯.  পল্লী জৈব সার ও বায়োগ্যাস ইউনিট।

পল্লী উন্নয়ন একাডেমির সাফল্য 

বগুড়ার পল্লী উন্নয়ন একাডেমীর বেশ কিছু উল্লেখযোগ্য অর্জন উল্লেখযোগ্য:

  • যেখানে আগে গভীর নলকূপ থেকে মাত্র 40 একর জমিতে সেচ দেওয়া যেত, সেখানে একাডেমির উদ্যোগে একটি সাব-সারফেস সেচ খাল স্থাপনের মাধ্যমে এখন 163 একর বোরো ধান ক্ষেতে সেচ দেওয়া সম্ভব। এই প্রক্রিয়াটি জ্বালানি খরচ 75% এবং জলের অপচয় 60% হ্রাস করেছে।
  • প্রচলিত পদ্ধতিতে, 2-কিউসেক নলকূপ স্থাপনে 15 থেকে 20 লক্ষ টাকা পর্যন্ত খরচ হয়। যাইহোক, দেশীয় প্রযুক্তি এবং স্থানীয় সম্পদ ব্যবহার করে, একাডেমিটি 75 হাজার থেকে 3 লাখ টাকা পর্যন্ত ব্যয়ে গভীরতার প্রয়োজনীয়তা অনুসারে একটি নলকূপ সফলভাবে স্থাপন করেছে।
  • দেশে আর্সেনিক দূষণ মোকাবিলায় একাডেমির গবেষকরা ফলিত গবেষণার মাধ্যমে আর্সেনিকমুক্ত নিরাপদ পানি সরবরাহের জন্য কার্যকরী ও সাশ্রয়ীভাবে ফিল্ট্রেশন প্লান্ট স্থাপন করতে সক্ষম হয়েছেন।
  • অধিকন্তু, একাডেমিটি হাইব্রিড সবজি বীজের বাণিজ্যিক উৎপাদনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে, যা জাতির জন্য উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছে। উল্লেখযোগ্যভাবে, একাডেমি ‘প্রথম জাতীয় বীজ মেলা’ শিরোনামে 1994 সালে দেশের প্রথম জাতীয় বীজ মেলার আয়োজন করেছিল। একাডেমির 80-একর প্রদর্শনী খামার, ফলিত গবেষণা এবং প্রযুক্তি প্রদর্শনের জন্য প্রতিষ্ঠিত, একটি প্রশংসনীয় উদ্যোগ হিসাবে প্রাসঙ্গিক ক্ষেত্রের মধ্যে ব্যাপকভাবে সম্মানিত
  • বঙ্গবন্ধুর ইচ্ছামত একাডেমি প্রতিষ্ঠা হয় এবং এটি সফলভাবে বাংলাদেশের উন্নয়নে অবদান রাখে। একাডেমি বেশ কয়েকটি জাতীয় ও আন্তর্জাতিক সম্মাননা পুরস্কার লাভ করেছে। এখনও এই প্রতিষ্ঠানটি শিক্ষা এবং উন্নয়নের দিকে মহৎ অবদান রাখছে।

পল্লী উন্নয়ন একাডেমির নিয়োগে আবেদনের জন্য শর্তাবলীঃ

যদিও এটি বিভিন্ন সরকারি নিয়োগের ক্ষেত্রে প্রযোজ্য হতে পারে, তবে বীর মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা এবং শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বয়সের সাপেক্ষে শিথিলযোগ্য কঠিন পরিস্থিতির কারণে তাদের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য হতে পারে না।

এই ধরনের বিশেষ ক্ষেত্রে সরকার বা প্রশাসন এফিডেভিটের বিধান দিয়ে বয়সের বিশেষ ক্ষেত্রে মানবিক দৃষ্টিতে মমতা ও সহানুভূতির মাধ্যমে বিশেষ সুবিধা প্রদান করতে পারে। তবে, এই ধরনের বিষয়ে নির্দিষ্ট নিয়োগ বা অন্যান্য সরকারী অনুমোদনের জন্য বিভিন্ন শর্তাবলী থাকতে পারে। নিম্নে সর্বশেষ তথ্য দেওয়া হলো:

আবেদনকারীর বয়স ০১/১১/২০২৩ খ্রি. তারিখে ন্যূনতম ২১ (একুশ) বছর এবং সর্বোচ্চ ৩০ (ত্রিশ) বছর হতে হবে। তবে বীর মুক্তিযোদ্ধা/শহীদ মুক্তিযোদ্ধার পুত্র-কন্যা এবং শারীরিক প্রতিবন্ধীদের ক্ষেত্রে বয়স ০১/১১/২০২৩ খ্রি. তারিখে ৩২ (বত্রিশ) বছর পর্যন্ত শিথিলযোগ্য। বয়স প্রমাণের ক্ষেত্রে এফিডেভিট গ্রহণযোগ্য নয়।

আরও পড়ুনঃ

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *