ফ্রিল্যান্সিং কী হালাল

ফ্রিল্যান্সিং ইনকাম কি হালাল?

ফ্রিল্যান্সিং ইনকাম কি হালাল জেনে নিন এই পোস্টে। ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের কাজ করাই হচ্ছে ফ্রিল্যান্সিং।

ফ্রিল্যান্সিং আসলে কি?

ইন্টারনেটের মাধ্যমে দেশ-বিদেশের বিভিন্ন ব্যক্তি বা প্রতিষ্ঠানের চাহিদা পূরণে সে অনুযায়ী কাজ করার নাম হচ্ছে, ফ্রিল্যান্সিং।

যেহেতু ইন্টারনেট একটা বিশাল জগৎ এর মাধ্যমে নানাবিদ কাজ করা হয়ে থাকে । সুতরাং শরীআতের আলোকে ফ্রিল্যান্সিং হালাল নাকি হারাম এর জবাব নির্ভর করবে। কাজটি হালাল হলে এর পারিশ্রমিক হালাল হবে, আর কাজটি হারাম হলে এর পারিশ্রমিক হারাম হবে সিম্পল হিসাব।

মোটকথা, ফ্রিল্যান্সিং হালাল বিবেচিত হতে কতিপয় কিছু নীতিমালা প্রযোজ্য। নিম্নে পয়েন্ট গুলি দেওয়া হলঃ

ফ্রিল্যান্সিং ইনকাম হালাল হওয়ার ৫টি নীতি

১. ইসলামি দৃষ্টিকোণ থেকে কাজটি হালাল হওয়া (হারাম না হওয়া)।

২. মানুষ, সমাজ ও দেশের জন্য ক্ষতিকারক না হওয়া।

৩.আর্থিক লেনদেনের প্রক্রিয়ায় হারাম কোন বিষয় যুক্ত না হওয়া- যেমন: সুদ, ঘুষ বা দুর্নীতি।

৪. ফ্রিল্যান্সিং ব্যবসা হওয়ার দৃষ্টিকোণ থেকে হালাল হওয়া।

৫. মহান আল্লাহ ব্যবসাকে করেছেন হালাল আর সুদকে করেছেন হারাম। শরীআতে ব্যবসার বৈধ প্রক্রিয়া অনুসরন করা হলে এর দ্বারা অর্থ উপার্জন হালাল হবে।

একটা উদাহরণ দিলে ভাল বুজতে পারবেন –

কেউ যদি গ্রাফিক্স ডিজাইন করতে গিয়ে ইসলামিক কোন পোস্টার ডিজাইন করে, বা ওয়েব সাইট ডিজাইন করতে গিয়ে কোন ভাল জ্ঞানমূলক ওয়েবসাইট তৈরি করে, তবে এটা অবশ্যই তা হালাল হবে। কিন্তু আবার সেটা যদি কোন মাদক বা নেশা জাতীয় কোন কিছু বিক্রয়ের বিজ্ঞাপন বিষয়ক পোস্টার হয় অথবা নাস্তিকতা প্রচারের কোন ওয়েবসাইট হয়, তখন তাই হারাম হবে।

আরও পড়ুন –

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *