ফাইভারে সেল বাড়াতে ৫ টি টপ কিলার টিপস

নতুন ফাইভার সেলারদের এটা একটা কমন প্রশ্ন যে, ” আমি কীভাবে ফাইভারে বেশি সেল পাবো।” বেশিরভাগ সেলারদের এই প্রশ্ন করতে দেখা যায়। আপনি যদি নতুন সেলার হোন বা অলরেডি সেল পাওয়া শুরু করেছেন, তবে তা আরও বাড়াতে চান তাহলে এই আর্টিকেলটি আপনাকে আপনার ফাইভারে ২০০% সেল বাড়ানোর জন্য সাহায্য করতে প্রস্তুত। 

ফাইভারে সেল পাওয়ার বেশ কয়েকটি উপায় রয়েছে। আর তাই ফাইভারে সেল বাড়ানোর উপায়সমূহ আলোচনা করার আগে সেল পাওয়ার কৌশল সম্পর্কে আলোচনা করাটা অধিক যুক্তিযুক্ত বলে আমি মনে করি।

আপনি গত দু’সপ্তাহ আগে নতুন ফাইভার অ্যাকাউন্ট তৈরী করেছেন, কিন্তু এখনো কোনো অর্ডার বা সেল পাননি। এর কারণ হতে পারে বায়ার আপনার গিগটিকে অর্ডার করার উপযুক্ত বলে মনে করে নি। সুতরাং, সেল পেতে হলে ফাইভারে আপনার বায়ার-ফ্রেন্ডলী গিগ থাকা প্রয়োজন। 

আর তাই ভালো মানের একটি গিগ তৈরী করতে আপনাকে হলে নিম্নোক্ত বিষয়গুলির দিকে নজর দিতে হবে।

প্রোফাইলে স্পষ্ট ও আকর্ষণীয় ছবি যুক্ত করুন :

এটা ১০০% সত্যি যে, আমরা যা দেখি তাতেই অনুপ্রাণিত হয়ে যাই। অনুরুপভাবে, বায়াররাও ডিফল্ট প্রোফাইল ব্যবহারকারীর চেয়ে একটি ভালো ও স্পষ্ট ছবি যুক্ত প্রোফাইল ব্যবহারকারী সেলারের থেকে গিগ অর্ডার করতে বেশি আগ্রহী থাকে। আর তাই, আপনার প্রোফাইলে ব্যবহার করা ছবিটি সুস্পষ্প এবং আকর্ষণীয় কি না তা নিশ্চিত করুন। 

এক্ষেত্রে আপনি গুগল থেকে বেশকিছু আকর্ষণীয় ছবি বাছাই করতে পারেন। তবে, কোনো সেলিব্রেটির ছবি ব্যবহার করা থেকে দূরে থাকুন। আপনি কি জানেন কাস্টমার কেয়ারের রিপ্রেজেনটিভরা সব সময় আকর্ষণীয়ভাবে কেন থাকে? অবশ্যই, কাস্টমারদের আকর্ষণর জন্য। যাতে করে তাদের ভালো সেল হয় এবং তারা আরও অধিক কাস্টমার লাভ করতে পারে। ফাইভারের ক্ষেত্রেও ঠিক একই রকম, একটি আকর্ষণীয় প্রোফাইল আপনার সেল বাড়িয়ে দিতে সক্ষম।

ভালো মানের গিগ শিরোনাম বাছাই করুন: 

গিগ শিরোনাম লেখার ক্ষেত্রে লক্ষ্য রাখবেন যেন তা বেশি বড় না হয়ে যায়। গিগ শিরোনাম EYE-CATCHING হওয়া জরুরী। সুতরাং, শিরোনাম ছোট করার চেষ্টা করুন। 

গিগের ডিস্ক্রিপশন দীর্ঘ করুন: 

আপনি আপনার গিগে কি অফার করছেন, সার্ভিসিংএ আপনার দক্ষতা কতটা, কিভাবে আপনি বায়ারের ডেলিভারি সম্পন্ন করেন, বায়ার আপনার থেকে গিগ অর্ডার করার ক্ষেত্রে কতটা উপকৃত হতে পারে ইত্যাদি আপনার গিগ ডিস্ক্রিপশনে লিখুন। এবং চেষ্টা করবেন যেন আপনার গিগটি অবশ্যই বর্ণনামূলক হয়। একটি দীর্ঘ ডিস্ক্রিপশনযুক্ত গিগ ফাইভারে আপনার সেল বাড়িয়ে দিতে যথেষ্ট কার্যকর।

প্রথম সেল পাওয়ার পরও দেখা যায় যে পরবর্তী সেল পেতেও অনেক দেরী হয়। সেক্ষেত্রে আরো কিছু কৌশল অবলম্বন করার মাধ্যমে ফাইভারে সেল বাড়ানো সম্ভব। নিচে ফাইভারে সেল বাড়াতে ৫ টি টপ কিলার টিপস সম্পর্কে আলোচনা করা হলো:

(১) ট্র্যাফিক বাড়ানোর চেষ্টা করুন:

ভালো সেল পাওয়ার জন্য ট্র্যাফিক প্রয়োজন। কিন্তু আপনার গিগের জন্য ট্র্যাফিক বাড়াবেন কি করে? এর দুটি সহজ উপায় রয়েছে।

প্রথমত, আপনার গিগ বা ফাইভার প্রোফাইলের জন্য একটি ওয়েবসাইট তৈরী করুন। ওয়েবসাইট তৈরীর ক্ষেত্রে আপনি Blogger.com ব্যবহার করতে পারেন। ওয়েবসাইট তৈরীর পর আপনি ফেইসবুকসহ বিভিন্ন স্যোশাল মিডিয়া নেটওয়ার্কগুলিতে আপনার ওয়েবসাইটের URL শেয়ার করুন। ওয়েবসাইট লিঙ্ক শেয়ার করার পাশাপাশি আপনি আপনার গিগের একটি সংক্ষিপ্ত বর্ণনা তুলে ধরতে পারেন। ‍সেইসাথে, আপনার পূর্বের কাজের লিঙ্কগুলিও এড করুন। এটি আপনার গিগে তুলনামূলক ট্র্যাফিক বাড়িয়ে দেবে।

দ্বিতীয়ত, ক্লায়েন্ট আপনার কাছে আসার অপেক্ষা না করে আপনি নিজে ক্লায়েন্টের কাছে যান। উদাহরণস্বরূপ, আপনি WordPress Error ফিক্স করেন। সেক্ষেত্রে আপনি গুগলে সার্চ করতে পারেন, “Help Fixing WordPress Error”। দেখতে পারবেন এমন অনেক বায়ার আছে যারা এই ধরনের সার্ভিস খুঁজছে। সুতরাং, অপেক্ষা না করে আপনি নিজে তাদেরকে নক করুন।

(২) আপনি নিজেই আপনার গিগ অর্ডার করুন:

বায়াররা সাধারণত পজিটিভ রিভিউ প্রাপ্ত গিগের সন্ধান করে থাকে। নতুন সেলারদের এটা থাকে না বলে তাদের অর্ডার পেতে অনেক সময় লেগে যায়। সেক্ষেত্রে আপনি আপনার ২-৩ টি ফাইভার প্রোফাইল তৈরী করুন। তবে অবশ্যই মাথায় রাখতে হবে যে, প্রত্যেকটি ফাইভার অ্যাকাউন্ট যেন আলাদা আলাদা সার্ভিসের হয়। তারপর আপনি আপনার নিজের গিগ নিজেই অর্ডার করুন এবং পজিটিভ রিভিউ দিন। এই কৌশল আপনার সেলকে দ্রুত বাড়িয়ে দেবে। 

(৩) গিগে বেশি ইমেজ আপলোড করুন:

আপনার গিগে কমপক্ষে তিনটি ইমেজ আপলোড করুন। আপনি কি ধরনের সার্ভিস দিচ্ছেন, তার বর্ণনা গিগ ইমেজের মাধ্যমে তুলে ধরুন। যেন বায়াররা আপনার গিগ ডিস্ক্রিপশন পড়ার পূর্বে গিগ ইমেজ দেখেই আপনার সার্ভিস সম্পর্কে ধারনা লাভ করতে পারে। আপনার গিগ ইমেজ যত বেশি আকর্ষণীয় হবে, আপনার সেল পাওয়ার সম্ভাবনাও তত বেড়ে যাবে। 

(৪) গিগে ভিডিও আপলোড করুন:

আপনার গিগের জন্য একটি ভিডিও তৈরী করুন। যার মাধ্যমে আপনি আপনার সার্ভিসটি সংক্ষিপ্ত আকারে তুলে ধরতে পারেন। ভিডিওটিতে এমনভাবে আপনার সার্ভিসকে বর্ণনা করুন, যাতে বায়ার আপনার গিগটিকে অর্ডার করতে দেরী না করতে পারে। এই কৌশল বায়ারদের চোখে আপনার সার্ভিস সম্পর্কিত দক্ষতাকে প্রকাশ করে। 

(৫) সঠিক সার্ভিস প্রদান করুন:

সার্ভিস প্রদানের ক্ষেত্রে সঠিক মূল্যের গিগ প্যাকেজ নির্ধারন করুন। উদাহরণস্বরূপ, আপনার গিগের সার্ভিস প্যাকেজ হচ্ছে $10 । কিন্তু আপনি সঠিক মূল্য না জানার কারণে $5 এই আপনার সার্ভিসটি দিতে চাইলেন। এতে আপনার বায়ার কমে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। কেননা, বায়ার এই ক্ষেত্রে আপনার কাজের অদক্ষতা বিচার করবে এবং আপনার কাছে অর্ডার করতে চাইবে না। তাই, আপনার গিগের সঠিক মূল্য নির্ধারণ করুন এবং সঠিক সার্ভিস প্রদান করুন। এটা ভালো সেল পাওয়ার অন্যতম অনন্য উপায়। 

সুতরাং, এখন আপনার পালা। ফাইভারে সেল পাওয়ার জন্য এবং ফাইভারে সেল বাড়াতে ৫ টি টপ কিলার টিপস মেনে চলুন। সঠিক কৌশল মেনে এগিয়ে যেতে পারলে নতুন সেলার হওয়ার পরও আপনার সেল পেতে কোনো বিলম্ব হবে না। 

Leave a Comment

Your email address will not be published.