Study Tech

দ্যা সিক্রেট অফ আউটসোর্সিং – [২০২০]

গত দশক ধরে আউটসোর্সিং সংস্থাগুলো বেড়েই চলেছে এবং সেইসাথে বাড়ছে আউটসোর্সিং এর জনপ্রিয়তার হার। তবে জনপ্রিয়তা অর্জন করলেও আউটসোর্সিং এর ব্যাপারে প্রায় অনেকেরই নেতিবাচক ধারণা থাকে। 

এর প্রধান নেতিবাচক ধারণা হল এটি বেকারত্ব বাড়িয়ে তোলে। কিন্তু আউটসোর্সিং নিয়ে আপত্তি শুরু করার আগে আমাদের জানতে হবে আউটসোর্সিং আসলে কি, কীভাবে আউটসোর্সিং করবো এবং কেন করবো।

 

আউটসোর্সিং কি?

আউটসোর্সিং হ’ল মূলত একটি বিজনেস প্র্যাকটিস, যেখানে একটি কোম্পানী তাদের কাজ সম্পাদন, পরিচালনা বা কোনও সার্ভিস সরবরাহ করার জন্য থার্ড-পার্টিকে নিয়োগ দিয়ে থাকে। 

আউটসাইড কোম্পানী যেগুলো সাধারণত সার্ভিস সরবরাহকারী বা থার্ড-পার্টি হিসেবে পরিচিত, তারা নিজস্ব কর্মী এবং কম্পিউটার সিস্টেমের মাধ্যমে তাদের কাজ বা সার্ভিসগুলো সরবরাহ করে। কোম্পানীগুলি বেশ কয়েকটি সার্ভিস আউটসোর্স করতে পারে । তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে-

-প্রোগ্রামিং এবং অ্যাপ্লিকেশন ডেভেলোপমেন্ট

-ইনফরমেশন টেকনোলোজী সার্ভিসসমূহ

-কাস্টমার এবং কল সার্ভিস ফাংশন ইত্যাদি সার্ভিসসমূহ আউটসোর্স করে। 

এছাড়াও ম্যানুফ্যাকচারিং প্রসেস, হিউম্যান রিসোর্স টাস্কস, বুককিপিং এবং পে-রোল প্রসেসিং এর মতো ফিন্যান্সিয়াল ফাংশনসহ অন্যান্য ধরণের কাজের আউটসোর্স করে থাকে। 

আউটসোর্সিং ১৯৮৯ সালের দিকে প্রাথমিকভাবে একটি ব্যবসায়িক কৌশল হিসাবে স্বীকৃত হয়েছিল এবং পরবর্তীতে ১৯৯০ সালে এটি বিজনেস ইকোনোমিকসের একটি অবিচ্ছেদ্য অংশ হয়ে ওঠে। আউটসোর্সিংয়ের অনুশীলন এখনও পর্যন্ত অনেক দেশে একটি বিতর্কের বিষয়। 

এর বিপক্ষীয় লোকেদের যুক্তি অনুযায়ী এটি বিশেষত ডমেস্টিক জবগুলোর একটি বিরাট ক্ষতির কারণ। তবে সমর্থকরা বলেন যে,“আউটসোর্সিং বিশ্বব্যাপী মুক্ত-বাজার অর্থনীতির প্রকৃতি বজায় রাখতে সহায়তা করে।”

দ্যা সিক্রেট অফ আউটসোর্সিং

 

আউটসোর্সিং কাজের উদাহরণ

সাধারণত আউটসোর্সিং কৌশলগুলি কাস্টমার সার্ভিস, অ্যাকাউন্টিং, ট্যাক্স কনসাল্টিং, আইটি এবং মার্কেটিং ডিপার্টমেন্টগুলোতে বেশি ব্যবহৃত হয়ে থাকে। সম্ভাব্য আউটসোর্সিং কৌশলগুলির উদাহরণগুলি নিম্নরূপ:

  • কাস্টমার সার্ভিস:

    একটি কোম্পানী কাস্টমার সার্ভিসের কাজটি একটি বিশেষ কোম্পানীর কাছে হস্তান্তর করে। কল সেন্টারগুলি বেশিরভাগ ক্ষেত্রে একটি নির্দিষ্ট মূল্যে নির্দিষ্ট কল ক্যাপাসিটি গ্রহণ করে থাকে।

  • মার্কেটিং:

    একটি কোম্পানী একটি বাহ্যিক সার্ভিস প্রোভাইডারের স্যোশাল মিডিয়া চ্যানেলগুলির সমর্থনকে আউটসোর্স করে।

  • পণ্য উত্পাদন:

    মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে অনেক ফ্যাশন কোম্পানীগুলো পোশাক উত্পাদন করা খুব ব্যয়বহুল বলে মনে করে। এবং তারা বেশিরভাগ ক্ষেত্রে এশিয়াতে উৎপাদিত পোশাক পছন্দ করে। উৎপাদন সম্পন্ন হওয়ার পরে পোশাকটি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রেরণ করা হয়।

 

আউটসোর্সিং এর প্রকার

আউটসোর্সিং এর কয়েকটি পৃথক ধরন রয়েছে। সেগুলো হল:

  • Onshoring:

    কাজ বা সার্ভিসগুলি কোম্পানির নিজস্ব দেশে স্বল্প ব্যয় স্থানে স্থানান্তরিত করা।

  • Offshoring:

    বিদেশে থার্ড-পার্টি প্রোভাইডারদের কাছে কাজ বা সার্ভিস স্থানান্তরিত করা।

  • Nearshoring:

    প্রায়শই সীমান্তবর্তী দেশ এবং অঞ্চলগুলিতে লোকের কাছে কাজ বা সার্ভিস স্থানান্তরিত করা।

আউটসোর্সিং চুক্তিগুলি সাধারণত প্রয়োজন অনুযায়ী পরিবর্তন হয়ে থাকে। মূলত প্রোগ্রামিং বা কনটেন্ট ক্রিয়েশনের মতো নির্দিষ্ট প্রসেসগুলির জন্য কাজের ভিত্তিতে উপযুক্ত ফ্রিল্যান্সারদের নিয়োগ দেওয়া হয়। একটি কোম্পানীর তাদের পুরো আইটি বিভাগের মাধ্যমে আউটসোর্সিং করার ক্ষেত্রে সুস্পষ্টভাবে বর্ণিত প্রয়োজন অনুসারে লং-টার্ম পার্টনারশীপের  প্রয়োজন পড়ে। 

 

আউটসোর্সিং সার্ভিস

বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং অর্থাৎ, BPO হচ্ছে আউটসোর্সিংয়ের ক্ষেত্রে একটি অতিরিক্ত শব্দ। এটি মূলত দুই ভাগে বিভক্ত। যথা: 

(১) ব্যাক-অফিস BPO, যার মধ্যে বিলিং বা ক্রয়ের মতো অভ্যন্তরীণ ব্যবসায়ের ফাংশন অর্ন্তভূক্ত রয়েছে।

(২) ফ্রন্ট-অফিস BPO, যার মধ্যে কাস্টমার রিলেটেড সার্ভিস যেমন- মার্কেটিং বা টেক সাপোর্ট অন্তর্ভুক্ত রয়েছে। 

ইনফরমেশন টেকনোলজী আউটসোর্সিং অর্থাৎ ITO হলো বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিংয়ের একটি সাবসেট। বেশিরভাগ বিজনেস প্রসেস আউটসোর্সিং কোনও কোম্পানীর নির্ধারিত প্রসেসের সাথে জড়িত।

Knowledge Process Outsourcing (KPO) এমন প্রসেস গুলির সাথে জড়িত যেগুলোর সাধারণত উন্নত গবেষণা এবং বিশ্লেষণাত্মক, প্রযুক্তিগত এবং সিদ্ধান্ত গ্রহণের দক্ষতা যেমন Pharmaceutical R&D বা পেটেন্ট রিসার্চের ডিমান্ড রয়েছে।

আইটি আউটসোর্সিং পুরোপুরি ভাবে CIO এর ডোমেনের আওতায় পড়ে। তবে CIO গুলি বেশিরভাগক্ষেত্রে নন-আইটি বিজনেস প্রসেস এবং নলেজ প্রসেসিংয়ের সাথে জড়িত থাকে। 

CIO গুলি আউটসোর্সিংয়ের ক্ষেত্রে শুধুমাত্র যে দক্ষতার বিকাশ ঘটিয়েছে তা নয়, সেইসাথে এটি বিজনেস এবং নলেজ প্রসেসের ক্ষেত্রে প্রায়শই IT সিস্টেম এবং সাপোর্টের সাথে যুক্ত।

দ্যা সিক্রেট অফ আউটসোর্সিং

আউটসোর্সিংয়ের কারণগুলি কী কী?

আউটসোর্সিংয়ের প্রত্যাশিত ব্যয় সাশ্রয়ের পাশাপাশি নির্দিষ্ট কাজ হস্তান্তর করার অন্যান্য কারণও বিদ্যমান। যেমন:

  • দক্ষতা বৃদ্ধি :

    কোম্পানীগুলো তাদের মূল দক্ষতার দিকে মনোনিবেশ করতে পারে এবং আরও দক্ষতার সাথে কাজ করতে পারে।

  • অনুকূল স্কেলিবিলিটি:

    আউটসোর্সিং শ্রমের প্রাপ্যতা বৃদ্ধি করে। ফলস্বরূপ, সর্বাধিক আউটপুট অর্জন করা যায় এবং যথেষ্ট উৎপাদনেরও গ্যারান্টি দেওয়া যায়।

  • দ্রুত প্রতিক্রিয়া:

    থার্ড-পার্টি কোম্পানীগুলোকে কাজ দেয়ার মাধ্যমে আপনি পরিবতনের ক্ষেত্রে আরও বেশি প্রতিক্রিয়াশীল হয়ে উঠতে পারেন।

  • গুণমানের উন্নতি:

    আউটসোর্সিং বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই মানের উন্নতি বয়ে নিয়ে আসে। 

  • খরচ বাঁচান:

    এক্সটার্নাল কোম্পানীগুলো তাদের সার্ভিসের ক্ষেত্রে উচ্চতর দক্ষতা অর্জন করে। তারা আরও অনেক বেশি সাশ্রয়ী মূল্যে কাজ করতে পারে এবং ছাড়ের অফার দেয়।

  • জানার অভাব:

    কোম্পানীগুলোতে মাঝে মাঝে নতুন প্রসেস এবং কাজের প্রয়োজন পড়ে। তবে সে অনুযায়ী সবসময় দক্ষ কর্মচারী পাওয়া যায় না। সেক্ষেত্রে আউটসোর্সিং দক্ষ শ্রমিকের বিকল্প হিসেবে বেছে নেওয়া যায়।

আউটসোর্সিং এর সুবিধা এবং ব্যয়

মূলত আউটসোর্সিং পরিস্থিতি অনুসারে পরিবর্তনশীল। তবে আউটসোর্সিংয়ের তুলনামূলক অনেকগুলো সুবিধা রয়েছে। যেমন: 

  • কম ব্যয় 
  • দক্ষতা বৃদ্ধি
  • পরিবর্তনশীল ক্ষমতা
  • কৌশল / মূল দক্ষতার উপর ফোকাস বৃদ্ধি
  • দক্ষতা বা সংস্থান অ্যাক্সেস
  • ব্যবসা এবং বাণিজ্যিক অবস্থার পরিবর্তনের পাশাপাশি নমনীয়তা বৃদ্ধি করে
  • বাজারে ত্বরিত সময়
  • অভ্যন্তরীণ অবকাঠামোতে চলমান বিনিয়োগ কম
  • নতুন সরবরাহকারীর কাছে সম্পদ স্থানান্তর হওয়ার ফলে সম্ভাব্য নগদ প্রবাহ

অসুবিধাসমূহ

  • ধীরে ধীরে পরিবর্তন
  • বিজনেস অথবা ডোমেইন নলেজের অভাব
  • ভাষা এবং সাংস্কৃতিক বাধা
  • টাইম জোনের পার্থক্য
  • নিয়ন্ত্রনের অভাব ইত্যাদি।

সঠিক পন্থা

আপনি কি মনে করেন যে আউটসোর্সিং আপনার ব্যবসায়ের সেরা কৌশল, তবে কীভাবে এগিয়ে যাবেন তা বুঝতে পারছেন না? 

সহজ ভাবে বলতে গেলে প্রকল্প আউটসোর্সিংয়ের জন্য মূলত কোনও একক সঠিক পন্থা নেই। কোম্পানীগুলো যেমন একটি অপরটির থেকে আলাদা ধরনের হয় তেমনি আউটসোর্সিং কৌশলগুলিও আলাদা আলাদা হয়ে থাকে। সুতরাং নিম্নলিখিত সেরা অনুশীলন পদ্ধতিগুলো পড়ুন:

১) বর্তমান অবস্থা অনুধাবন করুন: কোনো কাজের, একটি সাব-রিজিওনের বা বিজনেস প্রসেসের প্রকৃত অবস্থা অনুধাবন করুন। এর মাধ্যমে আপনি আপনার কাজের সর্বোত্তম কোর্স নির্ধারণ করতে পারবেন এবং সেইসাথে আউটসোর্সিং কৌশলের সম্ভাবনা অনুমান করতে পারবেন।

২) প্রস্তুতি গ্রহণ করুন: আউটসোর্সিং প্রকল্পের সর্বাধিক সুবিধা পেতে আপনার সংস্থার সমস্ত স্টেকহোল্ডারদের সাথে কিক-অফ মিটিংয়ের ব্যবস্থা করুন। আপনার সভায়, আপনি ভবিষ্যতের যৌথ কাজের ভিত্তি স্থাপন করতে পারেন।

সেইসাথে প্রকল্পের উপকারিতা, প্রকল্পের সামগ্রী, সময়, এবং পরবর্তী পদক্ষেপগুলি হাইলাইট করুন এবং আলোচনা করুন।

৩) সার্ভিস প্রোভাইডার নির্বাচন করুন: একে অপরের সাথে সম্ভাব্য সার্ভিস সরবরাহকারীদের তুলনা করুন। সম্ভাব্য সার্ভিস সরবরাহকারীদের সাথে বাছাই এবং কথোপকথনের জন্য আপনার একটি প্রোডাক্ট রিকুইরিমেন্ট এবং স্কোপ স্টেটমেন্ট প্রয়োজন।

প্রোডাক্ট রিকুইরিমেন্ট ডকুমেন্টসে আপনি সমস্ত বেসিক রিকুইরিমেন্টের পাশাপাশি রাফ প্রজেক্টের কনসেপ্টগুলিও রেকর্ড করতে পারেন। 

তবে স্কোপ স্টেটমেন্টে আপনি সংশ্লিষ্ট সমাধান এবং রিকুইরিমেন্টের ডিটেইলস নোট করুন। এর ওপর ভিত্তি করে সার্ভিস সরবরাহকারীরা নতুন সমাধান নিয়ে আসতে পারে অথবা বিদ্যমানগুলির বিকাশ করতে পারে এছাড়াও, আপনি সম্ভাব্য ভুল বোঝাবুঝি এড়িয়ে চলুন।

দ্যা সিক্রেট অফ আউটসোর্সিং

ভুল ভ্রান্তি এড়িয়ে চলুন

সাধারণত আউটসোর্সিং একটি জটিল প্রক্রিয়া হওয়ায় এর প্রয়োগে ভুল হতে পারে। এমনকি ব্যাপক পরিকল্পনার মাধ্যমেও নিখুঁত প্রসেসের গ্যারান্টি দেওয়া সম্ভব হয় না। নিচে কয়েকটি সাধারণ ভুল তুলে ধরা হলো যাতে আপনি সেগুলি এড়িয়ে যেতে পারেন:

  • ভুল আউটসোর্সিং পার্টনার:

    সন্তোষজনক ফলাফলের জন্য আপনার বিজনেস পার্টনার  সাবধানে নির্বাচন করা দরকার।

  • খামখেয়ালী আউটসোর্সিং:

    খামখেয়ালী আউটসোর্সিং করা থেকে বিরত থাকুন। শুধুমাত্র অর্থনৈতিক দৃষ্টিকোণ থেকে নয়, প্রথমে আপনার নিজের কোম্পানির বিভিন্ন ক্ষেত্র এবং ক্রিয়াকলাপ বিবেচনা করে তারপরে সিদ্ধান্ত নেওয়া ভাল।

  • ভুল চুক্তি:

    ভুল চুক্তি থেকে দূরে থাকুন।কী আউটসোর্স করা হচ্ছে এবং কীভাবে বা কতটা নির্দিষ্ট মানদণ্ড পর্যবেক্ষণ করা হবে তা আগেই নির্দিষ্ট করে দেওয়া গুরুত্বপূর্ণ।

বিদেশে আউটসোর্সিংয়ের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ বিষয়

আপনি যদি আপনার কাজের প্রক্রিয়ার অংশ আউটসোর্স করতে চান এবং বিদেশে কোনো কোম্পানী অথবা সার্ভিস প্রোভাইডারকে নিয়োগ করতে চান, তাহলে নিচের এই তিনটি বিষয় বিবেচনা করতে ভুলবেন না:

টাইম ডিফারেন্স:

আপনি বিশ্বব্যাপী ফ্রিল্যান্সারদের সাথে কাজ করতে পারেন। তবে কখনো কখনো জরুরী অ্যাসাইনমেন্ট বা মিটিং এর ক্ষেত্রে টাইম ডিফারেন্স অসুবিধা হতে পারে। আর তাই টাইম ডিফারেন্স এর বিষয়টি মাথায় রাখা উচিত।

ভাষার প্রতিবন্ধকতা:

বিদেশে আউটসোর্সিংয়ের ক্ষেত্রে অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ পূর্বশর্ত ইংরেজিতে দক্ষ হওয়া। 

ওয়ার্কিং মেথড:

সব কোম্পানীর কাজের পদ্ধতি এবং কৌশল এক হয় না। হতে পারে আপনি যেভাবে অভ্যস্ত অন্য কোনো কোম্পানী অন্যভাবে সেই সমস্যার সমাধান করতে পারে। সুতরাং এই বিষয়টিও গুরুত্ব সহকারে মাথায় রাখা উচিত। 

পরামর্শ

অনেক কোম্পানী আছে যারা একটি সাশ্রয়ী মূল্যে সার্ভিস ক্রয় এবং তাদের নিজস্ব দক্ষতার ওপর পরিপূর্ণভাবে ফোকাসের উদ্দেশ্যে আউটসোর্সিং এর কৌশলগুলি অবলম্বন করে থাকে। প্রত্যাশিত সাফল্যের উদ্দেশ্যে এই জাতীয় ব্যবস্থার জন্য আধুনিক উৎপাদন এবং লজিস্টিক ধারণার প্রয়োজন। 

সঠিক সময়ে উৎপাদন কৌশল হচ্ছে এই ধারণাগুলির একটি উদাহরণ। অর্থাৎ প্রয়োজনের সাথে সাথেই পণ্য সামগ্রী উৎপাদন এবং বিতরণে কৌশলি হওয়া। এইভাবে একটি কোম্পানী তাদের স্টোরেজ ব্যয় বাঁচাতে পারে।

বর্তমানে, গ্লোবাল লজিস্টিক ধারণা এবং ইন্টারনেটের কনস্ট্যান্ট ডেভেলোপের কারণে কোম্পানীগুলোর তাদের প্রসেসের কম-বেশি বড় অংশ অন্য কোম্পানীগুলোর কাছে হস্তান্তর করা আগের চেয়ে অনেক বেশি সহজ হয়ে গেছে। 

আউটসোর্সিং এর  সঠিক ব্যবহারের মাধ্যমে কোনো কোম্পানী তাদের কাজের গতি বাড়াতে এবং পণ্য বা সার্ভিসগুলি উন্নত করতে পারে। সেইসাথে ক্রমবর্ধমান বিশ্বে প্রতিযোগিতা মোকাবিলা করে টিকে থাকতে পারে।

দ্যা সিক্রেট অফ আউটসোর্সিং

Leave a Comment

Your email address will not be published. Required fields are marked *